অনলাইন ডেস্কঃ আলোচিত মাদক সম্র্রাট সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের পাঠাকইন গ্রামের তবারক আলী ওরফে ইয়াবা সুমনকে শুক্রবার দিবাগত ভোর রাত ৪.৪০ মিনিটের সময় নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি পুলিশ)। সে পাঠাকইন গ্রামের মৃত আলকাছ আলীর পুত্র। তবারক আলীকে গ্রেফতারের পর পুলিশ তার (তবারক) বসতঘরে তল্লাশি করে শয়নকক্ষের খাটের বালিশের নিচ হতে পাঁচ প্যাকেটে থাকা ১ হাজার পিছ ও দেহ (তবারকের) তল্লাশি করে শার্টের পকেটে থাকা এক প্যাকেটে ৮০ পিছসহ মোট ১ হাজার ৮০ পিছ ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করে। যার আনুমানিক মূল্য ৩ লাখ ২৪ হাজার টাকা। এ ঘটনায় জেলা গোয়েন্দা শাখার (দক্ষিণ) এসআই সৈয়দ ইমরোজ তারেক বাদী হয়ে বিশ্বনাথ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং ১২ (তাং ১৪.০৩.২০ইং)।

সিলেট জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএমের নির্দেশনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) লুৎফর রহমানের নেতৃত্বে জেলা গোয়েন্দা শাখার (দক্ষিণ) অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) আশীষ কুমার মৈত্র ডিবি পুলিশের একটি বিশেষ দল নিয়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিশ্বনাথের পাঠাকইন গ্রামস্থ মাদক সম্র্রাট তবারক আলী ওরফে ইয়াবা সুমনের গ্রামের বাড়িতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে তবারককে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকৃত মাদক সম্র্রাট তবারকের বিরুদ্ধে সিলেট জেলার বিশ্বনাথ থানা, সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর থানা, হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট থানায় মাদক-চুরি-ছিনতাইসহ ১০টি মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
বিশেষ অভিযান পরিচালনাকালে তবারকের বসতঘরে অবস্থান করা তার (তবারক) মাদক ব্যবসার সহযোগী বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের মনোহরপুর গ্রামের ইউসুফ আলীর পুত্র ওয়াহিদ মিয়া (২২), বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার সাহেবগঞ্জ গ্রামের আবুল হোসেনের পুত্র সাগর হাওলাদার (২০) ও বড়শালা গ্রামের ফিরোজ জমাদ্দারের পুত্র ইমন জমাদ্দারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার গণমাধ্যমে জেলা পুলিশের প্রেরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ্য করা হয়েছে গত ৫ ফেব্রুয়ারী হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে ৬১ হাজার পিছ ইয়াবাসহ ২ নারীকে গ্রেফতার করে হবিগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল। এই ঘটনার অন্যতম মূলহোতা হিসেবে তবারক আলী ওরফে ইয়াবা সুমনের নাম আলোচনায় আসলে তাকে (তবারক) গ্রেফতারের জন্য ডিবি পুলিশসহ একাধিক টিম গঠন করে গ্রেফতারের নির্দেশনা প্রদান করেন সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম। যার প্রেক্ষিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) মোঃ লুৎফর রহমানের নেতৃত্বে ঢাকা, কুমিল্লাসহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে। তবে মাদ্রক সম্র্রাট তবারক আলী ওরফে ইয়াবা সুমন খুব দ্রুত নিজের অবস্থান পরিবর্তন করে আত্নগোপন করায় তাকে গ্রেফতারে পুলিশের বেগ পেতে হয়। অবশেষে শুক্রবার দিবাগত ভোরে বিশ্বনাথের পাঠাকইন গ্রামস্থ তবারক নিজ বসত বাড়িতে আসলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ তাকে (তবারক) ১ হাজার ৮০ পিছ এবং মাদক ব্যবসার ৩ সহযোগিসহ তাকে (তবারক) গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

সিলেটের পুলিশ সুপার মোঃ ফরিদ উদ্দিন পিপিএমের এর বরাত দিয়ে জেলা পুলিশের মিডিয়া অফিসার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) মোঃ লুৎফর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত তবারক আলী সিলেট জেলার একজন আলোচিত মাদক ব্যবসায়ী মর্মে জনশ্রুতি রয়েছে। তাকে গ্রেফতারের জন্য দীর্ঘদিন থেকে পুলিশ কাজ করে আসছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের প্রেক্ষিতে প্রাপ্ত তথ্য মোতাবেক অন্যান্য মাদক ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে গ্রেফতারের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

Please follow and like us:
error0
Tweet 20
fb-share-icon20