অনলাইন ডেস্কঃ বিশ্বকাপের পর শ্রীলঙ্কর মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ। কিন্তু সেই সফরে যাননি নিয়মিত অধিনায়ক মাশরাফী বিন মুর্তজা। জাতীয় দলের হয়ে সবশেষ বিশ্বকাপে দেখা গেছে তাকে। আপাতত বাংলাদেশের টেস্ট এবং টি-২০ থাকলেও ওয়ানডে সিরিজ নেই। আর তাই ঘুরে ফিরে আসা অবসরের প্রসঙ্গটা পিছু ছাড়ছে মাশরাফির।

শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) বিপিএলে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনের প্রসঙ্গটি আবারও সমানে চলে আসে। তবে সাধারণত এই ধরণের প্রশ্নে যে ধাচের জবাব দেন শুক্রবার তেমনটা করলেন না মাশরাফি। তিনি বলেন, বিশ্বকাপের ৮ থেকে ৯ ম্যাচে ১ উইকেট পাওয়ার পর কীভাবে বলা যাবে নির্বাচকরা তাকে দলে নেবেন কিনা! নির্বাচকরা যদি দলে রাখেন তাহলে খেলবেন।তার কথার মধ্যে অভিমানের ছাপ ভালোভাবেই পরিলক্ষিত হয়েছে । আবেগের বশে উগড়ে দিলেন ৬ মাসের জমানো ক্ষোভ ও অভিমান।

বিশ্বকাপে নিষ্প্রভ পারফরম্যান্সে বিদেশি সাংবাদিক তো বটেই দেশি সাংবাদিকরাও এই প্রশ্নের তীর ছুঁড়ে তার হৃদয় রক্তাক্ত করেছেন। উত্তরে কিছুই বলেননি। চুপ করে মাথা নিচু করে থেকেছেন। একই প্রশ্নবাণে আরেকবার জর্জরিত হলেন।

মাঠ থেকে অবসর নেয়ার বিষয়ে মাশরাফি বলেন, এখনো এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেননি তিনি। সামনে ঢাকা লীগ। উপভোগ করবেন এবং খেলবেন। সবসময় জাতীয় দলে খেলতে হবে, জাতীয় দলে না খেললে খেলোয়াড় না এমন তো না। নিজেকে এতো প্রাধান্য দেবার দরকার আছে তেমন না।সবাই ফুলের তোড়া দিয়ে মাঠ থেকে বিদায় জানাবে এর কোন প্রয়োজন নেই বলেও জানান তিনি।

বিএনএনিউজ২৪.কম/আর করিম চৌধুরী, এস জি নবী

You missed

“নরসিংদী ও মাধবদী পৌরসভা সাধারণ নির্বাচন-২০২১ উপলক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী, স্থানীয় সুধীজনসহ সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের সাথে জেলা প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও রিটার্নিং অফিসারদের মতবিনিময় সভা” আজ ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ উক্ত মতবিনিময় সভায় উপস্থিত থেকে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনু্ষ্ঠানের লক্ষ্যে প্রার্থী ও সুধীজনদের মতামত শ্রবণ করেন মান্যবর জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবং আপীল কর্তৃপক্ষ, নরসিংদী ও মাধবদী পৌরসভা সাধারণ নির্বাচন-২০২১ সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে প্রার্থী, সুশীল সমাজ ও সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সহযোগিতা অপরিহার্য উল্লেখ করে মান্যবর জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয় তাঁর বক্তব্যে জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিতকরণে সার্বিক নিরাপত্তা বিধানের আশ্বাস প্রদান করেন এবং নির্বাচনী আচরণবিধি প্রতিপালনের জন্য সকল প্রার্থীর প্রতি আহবান জানান।